Dinajpur News Time
শুক্রবার , ২০ জানুয়ারি ২০২৩ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. কৃষি ও প্রকৃতি
  7. ক্রিকেট
  8. খেলাধুলা
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. জীবনযাপন
  12. জেলার খবর
  13. তথ্যপ্রযুক্তি
  14. দেশজুড়ে
  15. ধর্ম

নারায়ণগঞ্জের খানপুর ও ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে মহিলা ও পুরুষ দালালদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি।

প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
জানুয়ারি ২০, ২০২৩ ১২:২২ পূর্বাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জের খানপুর ও ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে মহিলা ও পুরুষ দালালদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি।
এমদাদুল হক মিলন~বিশেষ প্রতিনিধিঃ-
নারায়ণগঞ্জের খানপুর ও ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে মহিলা ও পুরুষ দালালদের দৌরাত্ম্য বেড়ে গেছে।এতে সাধারণ রোগীদের বাইরে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা করাতে গিয়ে অতিরিক্ত টাকা খরচ হচ্ছে। এ ছাড়া দালালদের কারণে রোগী ও তাঁদের স্বজনেরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। হাসপাতালের কর্মকর্তা, স্থানীয় বেসরকারি ক্লিনিক ও রোগনির্ণয়কেন্দ্রের (ডায়াগনস্টিক সেন্টার) মালিকেরা এই দালাল চক্র গড়ে তুলেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, জরুরি বিভাগের সামনে একদল তরুণ দাঁড়িয়ে রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে একজনের নাম উজ্জ্বল। হাসপাতাল এলাকায় তাঁর বাড়ি।
জরুরি বিভাগের চারদিকে সারিবদ্ধ ইজিবাইক দাঁড়ানো। ইজিবাইকের সামনে চালক দাঁড়িয়ে। এ সময় হাসপাতাল থেকে বের হন এক রোগী। হাতে তাঁর একটি ব্যবস্থাপত্র। তিনি বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দালালেরা রোগী ও তাঁর স্বজনদের নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষা–নীরিক্ষা করানোর জন্য টানাটানি শুরু করেন। নাম গোপন রাখার শর্তে এক দালাল সকাল নারায়ণগঞ্জকে বলেন, জেনারেল হাসপাতাল এলাকায় গড়ে ওঠা বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর মালিকেরা হাসপাতালে কর্মরত ঝাড়ুদার, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ইজিবাইকচালকদের নিয়ে একটি দালাল চক্র তৈরি করেছে।
চিকিৎসক ব্যবস্থাপত্রে পরীক্ষা–নিরীক্ষা লিখে দেওয়ার পর দালালেরা রোগীদের ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগীদের নিয়ে যায়। একজন রোগী নিয়ে আসতে পারলে একজন দালাল ১০০ টাকা পেয়ে থাকেন। একইভাবে সমপরিমাণ টাকা কমিশন পেয়ে থাকেন হাসপাতালের কর্মকর্তারা। খানপুর ও ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের সামনে ও আশপাশ এলাকায় গড়ে উঠেছে ১০ থেকে ১২টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ক্লিনিক। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শয্যা সংকট ও চিকিৎসাসেবার অব্যবস্থাপনার সুযোগে দালালরা রোগীদের নিয়ে যায় ক্লিনিকে।
কতিপয় চিকিৎসকও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পাঠাচ্ছেন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। রোগীরা বাধ্য হয়ে এসব প্রতিষ্ঠানে ছুটছেন। পৌর এলাকায় গড়ে ওঠা ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে চলছে চিকিৎসার নামে কমিশন বাণিজ্য। হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও দালালদের কমিশন বাণিজ্যের কারণে জমজমাট হয়ে উঠেছে ক্লিনিক ও প্যাথলজি ব্যবসা। সরকারি হাসপাতালে রোগীদের প্রয়োজন ছাড়াই বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থাপত্র ধরিয়ে দেয়।

সর্বশেষ - সর্বশেষ

আপনার জন্য নির্বাচিত

চিরিরবন্দর ভিয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

পাখিরাজ ঈগল এবং আমাদের করণীয়, নতুন শিক্ষাক্রম

দিনাজপুর জেলা ধান চাউল ব্যবসায়ী গ্রুপের নির্বাচন ২৪ মাস মেয়াদী

দিনাজপুরে জব্দকৃত ২ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস করেছে বিজিবি

DNT

চিরিরবন্দর জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা ২০২৩ অনুষ্ঠিত

দিনাজপুরের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে তিন ফার্মেসীকে জরিমানা

দিনাজপুর চিরিরবন্দর ‘রাইস ট্রান্সপ্লান্টার’র মাধ্যমে ধানের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন

পাবনায় চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামি দিনাজপুরে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৩

AS

চিরিরবন্দরে যুবকের গলা কাটা লাশ উদ্ধার

চিরিরবন্দর বিএনপি’র উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত